থাইল্যান্ডের গুহায় আটকা পড়া ফুটবলার কিশোর উদ্ধার

থাইল্যান্ডের গুহায় আটকা পড়া ১২ কিশোর ফুটবলার ও তাদের কোচকে উদ্ধার অভিযানে প্রথম দফায় ৬ জনকে উদ্ধার করেছে উদ্ধারকারী দল। গতকাল রোববার সকালে ১৩ বিদেশি ডুবুরি ও থাইল্যান্ডের নৌবাহিনীর পাঁচ সদস্য এই উদ্ধার অভিযান শুরু করেন। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ছয়জন কিশোরকে গুহার ভেতর থেকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়। গুহায় ১৮ সদস্যের উদ্ধারকারী দলে থাকা চিকিৎসকরা শিশুদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর প্রথম দফায় তিন কিশোরকে উদ্ধারে সবুজ সঙ্কেত দেন । উদ্ধার মিশনের যৌথ কমান্ড সেন্টারের প্রধান ন্যারংস্যাক ওসোত্তানাকর্ন এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেছেন, ‘থাই নেভি সিলের পাঁচ সদস্যসহ বিদেশি ১৩ ডুবুরি সকাল ১০টায় গুহায় প্রবেশ করেছেন। এর মধ্যে ১০ জন চেম্বার-৯ (সখানে কিশোররা আটকা আছেন ও মাঝপথে ঝুঁকিপূর্ণ স্থান হিসেবে চিহ্নিত চেম্বার-৬ এর উদ্দেশে যাত্রা শুরু করেন।

এছাড়াও থাইল্যান্ড, যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, চীন এবং ইউরোপ থেকে অংশ নেয়া ডুবুরিদের অপর একটি দল গুহার প্রবেশপথ চেম্বার-৩ এ অবস্থান করেন। চেম্বার-২ এবং চেম্বার-৩ এর মাঝে সংকীর্ণ ও উঁচু-নিচু জলমগ্ন পথে রশি বসিয়ে সহায়তা করে এই দলটি। দীর্ঘ প্রায় ৪ কিলোমিটার সংকীর্ণ ও উঁচু-নিচু জলমগ্ন পথ পাড়ি দিয়ে এই কিশোররা শেষ পর্যন্ত বের হয়ে আসতে পারবে কি-না সেটি নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছিলেন আন্তর্জাতিক গুহা বিশেষজ্ঞরা।

প্রসঙ্গত, ২৩ জুন বেড়াতে গিয়ে উত্তরাঞ্চলীয় চিয়াং রাই এলাকার থাম লুয়াং নং নন গুহায় আটকা পড়ে ওয়াইল্ড বোয়ার ফুটবল দলের কিশোর ফুটবলাররা। তাদের বয়স ১১ থেকে ১৬ বছরের মধ্যে। ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ গুহাটি থাইল্যান্ডের অন্যতম দীর্ঘ গুহা। এখানে যাত্রাপথের দিক খুঁজে পাওয়া কঠিন। ভারী বর্ষণ আর কাদায় থাম লুয়াংয়ের প্রবেশ মুখ বন্ধ হয়ে গেলে তারা আটকা পড়ে। নিখোঁজের পর গুহার পাশে তাদের সাইকেল এবং খেলার সামগ্রী পড়ে থাকতে দেখা যায়।

নিখোঁজের নয় দিন পর সোমবার দুইজন বৃটিশ ডুবুরি চিয়াং রাই এলাকার থাম লুয়াং নং নন গুহায় তাদের জীবিত সন্ধান পান। পরে থাইল্যান্ডে নৌ বাহিনী গুহায় আটকা পড়া কিশোরদের ভিডিও ফেসবুকে পোস্ট করেন। ডুবুরিরা তাদের টর্চলাইটের আলো ফেলে ১৩ জনকেই দেখতে পায়। সে সময় তারা খুব ক্ষুধার্ত ছিলো।